January 24, 2021

বোড়াল গ্রামে ঋষি রাজনারায়ন বসুর জন্মদিন পালন

বিদিতা ঘোষ –

জাতীয়তাবাদী ঋত্বিক ঋষি রাজনারায়ন বসুর জন্ম ১৮২৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর বোড়াল গ্রামে।
তাঁর জন্মভিটায় রাজনারায়ন বসু ট্রাস্টি উদ্যোগে ঋষির ১৯৩ তম জন্মতিথি পালিত হলো এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে মাধ্যমে। উক্ত অনুষ্ঠানে বোড়াল অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কচিকাচাদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান হয়। ঋষির মূর্তিতে মাল্যদানের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার স্থানিয় পৌরমাতা দীপা ঘোষ, বিশিষ্ঠ সমাজসেবি মধু বসু, রাজনারায়ন বসু ট্রাস্টির তরফে সম্মানিত ব্যক্তিগন ও এলাকার শুভবুদ্ধি সম্পন্ন ব্যক্তিগন। অনুষ্ঠানে ঋষি রাজনারায়ন বসু সম্পর্কে উপস্থিত ব্যক্তিদের কথায় জানতে পারলাম।
রাজনারায়ণ বসুর জন্ম ১৮২৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর চব্বিশপরগনা জেলার বোড়াল গ্রামে। রাজনারায়ণ তার বক্তৃতার মধ্য দিয়ে অনেককেই জাতীয়তাবাদে উদ্বুদ্ধ করতে পেরেছিলেন। সাথে সাথে তিনি ১৮৭৩ সালে হিন্দু ধর্মের শ্রেষ্ঠতা নামে একটি বক্তৃতা দেন যেখানে তিনি হিন্দু ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ত্বসহ পাশ্চাত্য-বিরোধী মনোভাব প্রকাশ করেন। রাজনারায়ণ ১৮৮০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে বৃদ্ধ হিন্দুর আশা নামে একটি পুস্তিকার মাধ্যমে তিনি ভারতীয় উপমহাদেশের হিন্দুদের একত্রিত হয়ে একটি সংগঠনের অধীনে আসার আবেদন জানিয়েছিলেন। সমাজসংস্কারক হিসেবে তিনি ১৮৫০-এর দশকে বিধবাবিবাহকেও উৎসাহ দিয়েছেন। ১৮৬০ সালে মদ্যপানের বিরোদ্ধে সচেতনতা তৈরির উদ্দেশ্যে তিনি মদ্যপান নিবারণী সভা’ নামে একটি সংগঠন তৈরি করেন। মেদিনীপুর জেলায় তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ, গ্রন্থাগারও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। রাজনারায়ণ বসুর এক ভ্রাতুষ্পুত্র ছিলেন শহীদ বিপ্লবী সত্যেন্দ্রনাথ বসু, যার প্রেসিডেন্সি জেলে ফাঁসি হয়েছিল। রাজসাক্ষী নরেন গোঁসাইকে গুলি করে হত্যা করার জন্য ২৩ নভেম্বর, ১৯০৮ সনে সত্যেন্দ্র নাথ বসুর ফাঁসি হয়।একাজে তার সহযোগী ছিলেন অপর এক বিপ্লবী কানাইলাল দত্ত। রাজনারায়ণ বসু কঠ, কেন, মুণ্ডক ও শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদ ইংরেজিতে অনুবাদ করেন। তার কিছু
উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ:
রাজনারায়ণ বসুর বক্তৃতা (১ম ভাগ-১৮৫৫, ২য় ভাগ-১৮৭০)
ব্রাহ্ম সাধন (১৮৬৫)
ধর্মতত্ত্বদীপিকা (১ম ভাগ-১৮৬৬, ২য় ভাগ-১৮৬৭)
আত্মীয় সভার সদস্যদের বৃত্তান্ত (১৮৬৭)
হিন্দু ধর্মের শ্রেষ্ঠতা (১৮৭৩)
সেকাল আর একাল (১৮৭৪)
ব্রাহ্মধর্মের উচ্চ আদর্শ ও আমাদিগের আধ্যাত্মিক অভাব (১৮৭৫)
হিন্দু অথবা প্রেসিডেন্সি কলেজের ইতিবৃত্ত (১৮৭৬)
বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ক বক্তৃতা (১৮৭৮)
বিবিধ প্রবন্ধ (১ম খন্ড-১৮৮২)
তাম্বুলোপ হার (১৮৮৬)
সারধর্ম (১৮৮৬)
বৃদ্ধ হিন্দুর আশা (১৮৮৭)
রাজনারায়ণ বসুর আত্মচরিত (১৯০৯)
১৮ সেপ্টেম্বর ১৮৯৯ সালে রাজনারায়ণ মৃত্যুবরণ করেন। অনুষ্ঠানে সাধারন মানুষের উপস্থিত চোখে পরার মতো ছিল।

Total Page Visits: 288 - Today Page Visits: 1