November 28, 2022

একাডেমিতে চলছে কালার্স আর্টিস্ট গ্রুপের চিত্র প্রদর্শনী চলবে ২২জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত

নিজস্ব প্রতিনিধি –

অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে লেখা এক চিঠিতে রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, ছবি একটি নিশ্চিত প্রত্যক্ষ অস্তিত্বের সাক্ষী। তার ঘোষণা যতই স্পষ্ট হয়, যতই সে হয় একান্ত, ততই সে হয় ভালো। তার ভালো মন্দর আর কোনো যাচাই হতে পারে না। আর যা কিছু _সে অবান্তর_ অর্থাৎ যদি সে কোনো নৈতিক বাণী আনে, তা উপরি দান।

কলকাতায় রাবীন্দ্রিক ঘরানায় চিত্রশিল্পের এক বিকাশ ঘটেছে নিজস্ব নান্দনিক বৈশিষ্ট্যে। ২২ জুন থেকে ২৮ জুন কলকাতার একাডেমির গ্যালারিতে কালার্স আর্টিষ্ট গ্রুপের উদ্যোগে ১১জন শিল্পীর ৪১টি ছবির প্রদর্শনী চলছে। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন চিত্র শিল্পী সন্দীপ চ্যাটার্জি, মানবেন্দ্র সরকার ও মিহির কয়াল। সংগঠনের অন্যতম কর্ত্রী ও চিত্রশিল্পী রুবি শিকদার সাহা জানালেন, ছোট থেকেই

তিনি ছবি আঁকতে ভালোবাসেন। হাতের কাছে তুলি কলম না পেলে মেঝেতে পড়ে থাকা জল দিয়েই আঁকিঝুঁকি করতেন। বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছবি আঁকা নেশায় পরিণত হলো। প্রধানত প্রকৃতি তাঁকে বেশি আকর্ষণ করে। বিভিন্ন গাছের আলো আঁধারি রঙের শেড তাঁকে আকর্ষণ করে। করোনা পরিস্থিতিতে হাতে অনেক সময় পেলেও মানসিক উৎকণ্ঠা ছবি আঁকার ক্ষেত্রে মনোযোগী করতে পারেনি। এখন যেন মুক্তির স্বাদ পেয়েছি। অনেকদিন ধরেই ইচ্ছে ছিল, আমি সহযোগী চিত্রশিল্পীদের নিয়ে একটি প্রদর্শনী করব।সে ইচ্ছা এখন পূর্ণ হলো। ১১ জন শিল্পীকে একত্রিত করতে পেরেছি। প্রথমে সংশয় ছিল, সফল হবো কিনা। এখন আমি সফল। প্রত্যেক শিল্পী তো বটেই, বহু শিল্পানুরাগী মানুষের সাহায্য

পেয়েছি। প্রদর্শনীর অন্যতম শিল্পী সাধন দে। পেশাগত ক্ষেত্রে প্যাথলজিক্যাল দুনিয়ায় যুক্ত।স্বাভাবিকভাবেই করোনা প্রবাহে বাড়ি বসে ছুটি কাটানো বা ছবি আঁকার ক্ষেত্রে বহু সময় দিতে পারেননি। বরং দিনরাত ব্যস্ত থেকেছেন রোগী পরিষেবায়। ছবি আঁকার প্রথাগত শিক্ষা তেমন পাননি। মনের ইচ্ছে আর সাধনা সম্বল করে ছবি আঁকা। তবে বড়

ভাই সমান এক শিল্পীর সহযোগিতা পেয়েছেন। পরামর্শ পেয়েছেন। বাড়িতে গড়েছেন ছোট্ট গ্যালারি। সেখানে রোগীরা এসে ছবি দেখে মুগ্ধ হন। একাডেমির মত ঐতিহ্যশালী গ্যালারিতে তাঁর ছবি স্থান পেয়েছে এটা অবশ্যই

গর্বের। সাধনবাবুর বক্তব্য, তাঁর পছন্দের রং লাল। জল রং যেহেতু বেশিদিন টেঁকে না,তাই তেল রঙেই বেশি ছবি আঁকেন সাধন দে। তাঁর সাম্প্রতিক ছবি প্রয়াত শিল্পী কে কে’র পোট্রেট। সাধন বাবু জানালেন, আমি শিল্পীর অনুরাগী। তাই আমার শ্রদ্ধার্ঘ।ছবির নাম দিয়েছি অন্তিম লগ্নে।সাধন দে’র ছবি যে প্রথাগত শিক্ষা থেকে অর্জিত নয়,সে কথা মনে হয় না তাঁর ছবি দেখে। তুলির টানে রয়েছে মুন্সিয়ানা’র পরশ।

About Post Author

Total Page Visits: 166 - Today Page Visits: 1