October 6, 2022

২৭ তম আন্তর্জাতিক কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের অকালবোধনে সোনার বাঘ পেল পোল্যান্ডের ছবি অ্যানাটমিয়া

সুজিৎ চট্টোপাধ্যায় – কলকাতা

৭১টি দেশের ১৬৯৮টি ছবি জমা পড়ে। বাছাই করে দেখানো হলো ১৬৩টি ছবি।৪৬টি বিদেশি ছবি, ১০৪টি ফিচার ফিল্ম, ৫৯টি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি ও তথ্য চিত্র। কোলকাতায় অনুষ্ঠিত ২৭তম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের ৭দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানে ১০টি প্রেক্ষাগৃহে ছবি দেখলেন চলচ্চিত্রপ্রেমীরা। ১মে সমাপ্তি দিবসে সন্ধায় রবীন্দ্র সদনে আম জনতার সামনে ঘোষিত হলো মত ৯ টি পুরস্কার বিজেতার নাম। প্রতিযোগিতাবিভাগে সেরা পূর্ণদৈর্ঘ্যের ১১২ মিনিটের ছবি পোল্যান্ডের অ্যানাটমিয়া পেল সোনার বাঘ এবং বিশ্বের সর্বাধিক মূল্যের অর্থাৎ ৫১লক্ষ টাকার নগদ পুরস্কার। ছবির পরিচালক ওলা জাতকোওস্কা। এই মহিলা পরিচালক লেখিকাও বটে। এঁর প্রথম ছবি অ্যানাটমি। পরিচালক পোল্যান্ডের একটি ফিল্ম ইনস্টিটিউটে চিত্রনাট্য শৈলীর শিক্ষকতাও করেন। এই ছবির বিষয়বস্তু স্মৃতি হারিয়ে ফেলা বৃদ্ধ বাবাকে হাসপাতালে দেখতে আসে বাবাকে।বাবার স্মৃতি

ভ্রমকে সে সহনাভূতির সঙ্গে দেখে।বার বার সে ফিরে যায় নিজের শৈশবে।যখন সে বাবার স্নেহচ্ছায়ায় বড় হয়ে ওঠে। বিশেষ পুরস্কার হিসেবে জুরিদের বিচারে শ্রেষ্ঠ ছবি নির্বাচিত হয়েছে টিউনেশিয়ার ১২২মিনিটের ছবি স্ট্রিমস্। এই ছবির পরিচালক মেহদি হিমিলি। আরবি ভাষায় এই ছবির পরিচালক টিউনিস ও প্যারিসে কাজ করেন।পরিচালক নিজেই চিত্রনাট্যকার ও প্রযোজক।সিনেমার হাতেখড়ি প্যারিসে। স্বদেশে তিনি নতুন প্রজন্মের পরিচালক ।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। মঞ্চে টালিগঞ্জের এক ঝাঁক শিল্পীদের সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের শাসক দলের সদ্য নির্বাচিত সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা। মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে বলেন, বাংলা ছবিতে লগ্নী করার জন্য মুম্বাই প্রযোজকদের অনুরোধ জানাতে । সপ্তাহব্যাপী এই অকালবোধন উৎসবের ১ মে ছিল শেষ রজনী। উৎসবের সূচনা হয়েছিল সত্যজিৎ রায়ের অরণ্যের দিনরাত্রি ছবি দিয়ে । ২০২১এ সত্যজিৎ রায়ের জন্ম শতবার্ষিকী স্মরণে এই শ্রদ্ধাঞ্জলি। রবিবার সন্ধ্যার পর ঘোষিত হলো এবারের সেরা ছবি । নন্দন ১ প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হলো সেই ছবি অ্যানাটমিয়া।সত্যজিৎ রায়ের পাশাপাশি হাঙ্গেরির পরিচালক মিকলোস ইয়াঞ্চ, বিশ্বখ্যাত অভিনেতা জাঁ পল বেলমন্ডো, জাঁ ক্লদ ক্যারিরি, বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত, দিলীপকুমার, স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত, সুমিত্রা ভাবে, লতা মঙ্গেশকর,সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, বাপি লাহিড়ী ও অভিষেক চট্টোপাধ্যায়কেও শ্রদ্ধা জানানো হয় তাঁদের ছবি দিয়ে। উৎসবে সত্যজিৎ মেমোরিয়াল লেকচার, প্রদর্শনী ও সিনে আড্ডার ব্যবস্থাও ছিল।সত্যি কথা বলতে কি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতামূলক শৈল্পিক সৃষ্টি বিভাগে সেরা ভারতীয় ছবি হিসেবে পরিচালক ঈশান ঘোষের ঝিল্লি পেয়েছে সেরা পুরস্কার।পরিচালক গৌতম ঘোষের পুত্র ঈশান ২০১১ সালে হাত পাকান তথ্যচিত্র ও বিজ্ঞাপন চিত্রের মাধ্যমে। সিনেমার দুনিয়ায় সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে প্রথম কাজ শুরু করেন গৌতম ঘোষের শঙ্খচিল ছবিতে ২০১১ সালে এবং ২০১৯ সালে রাহগীর ছবিতে। দুটি ছবিরই পরিচালক গৌতম ঘোষ ।সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি নির্বাচিত হয়েছে গিরুপত্র ছবিটি। সৃষ্টিপাল সিং পরিচালিত ২১ মিনিটের এই ছবির বিষয়বস্তু এক টাইপিস্টকে নিয়ে। যে রাষ্ট্রবিরোধী বিষয় টাইপ করার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়। সে কিভাবে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করলো সেটাই বর্ণিত হয়েছে। দুটি প্রধান চরিত্রে আছেন সোলাঙ্কি রায় ও gসায়ন সরকার। শ্রেষ্ঠ তথ্যচিত্রের পুরস্কার পেল পরিচালক সূচি প্রসাদের ছবি নিক্কে মানু দি নিক্কি কাতাব। ইংরেজি ভাষায় যার নামকরণ হয়েছে দি লিটিল বুক অফ দি লিটিল ম্যান।

এবারের উৎসবে বিদেশি ছবির তালিকা তেমন মন কাড়ে নি। গত বছর সেরা পুরস্কার পেয়েছিল পরিচালক মানিজে হেকমতের ছবি বদর ব্যান্ড।এবার পরিচালকের ছবি ছিল ১৯। করোনা প্রবাহে ইরানের মৃত্যুর হার ছিল বেশি। পরিচালকের কথায় ১৯ ছবিটি তাঁর আত্মকথন। ভালো লেগেছে তিউনেশিয়ার পরিচালক মেহেদী হিমলি’র স্ট্রিমস্ ছবিটি । এই ছবিটি জুরিদের বিচারে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পেল। পরিচালক এক তরুণ সম্ভাবনাময় ফুটবল খেলোয়াড়ের পথ ভ্রষ্ট হয়ে অসামাজিক সঙ্গে সুস্থ জীবন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার গল্প বলেছেন। সেই দেশের সামাজিক অধঃপতনের একটা ছবি তিনি তুলে ধরেছেন ১২২মিনিটের ছবিতে।

ভালো লেগেছে ইরানের পরিচালক মোহসেন ওস্তাদ আলির ফেমিনিটি ছবিটি। মাদকাসক্ত ইরানি মহিলাদের নিয়ে ছবি। মনে থাকবে তাজিকিস্তানের পরিচালক ফয়জুল ফয়জের ৯৬ মিনিটের ছবি ওয়াটার বয়। সমুদ্র তীরবর্তী এক দ্বীপের বৃদ্ধ বরকত। তিনি পেশায় ছিলেন মৎস্য শিকারি। অথচ পুঁজিবাদী ব্যবস্থায় মাছ শিকারিদের মধ্যে প্রবেশ করেছে ভাইরাস। মাছের ব্যবসার আড়ালে চলছে স্মাগলিং বস্তুর ব্যবসা। যা বৃদ্ধ বরকতের পছন্দ নয়।তাঁর সঙ্গী ছোট্ট একটি ছেলে রামেশিস। পরিচালক সত্যি সত্যিই জেলেদের গ্রামে গিয়েই সেখানকার মানুষদের নিয়েই অভিনয় করিয়েছেন ।

ভারতীয় ছবির মধ্যে সেরা ছবি শৈবাল মিত্রের দি হলি কনসপিরেসি। ছবির দুটি মেরু। একটি নাসিরউদ্দিন শা। অন্যটি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। ছবির কাহিনী, এক আদিবাসী খ্রিস্টান শিক্ষক স্কুলের ছাত্রদের বাইবেলের জেনেসিস নামে কাল্পনিক আখ্যান উপেক্ষা করে ডারউইনের সূত্র পড়িয়ে বিজ্ঞানমনস্ক করে তুলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ধর্মীয় রক্ষণশীল গোষ্ঠী এতে বিপদের গন্ধ পান।আদালত চত্বরে বন্দী শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার মামলার কৌশলী সৌমিত্র। শিক্ষকের পক্ষেও একজন ক্যাথলিক খ্রিস্টান নাসিরউদ্দিন শা।এক অসাধারণ চরিত্রে কৌশিক সেন। পরিচালকের বক্তব্য, দেশে রাইট টু থিঙ্ক নামে যা পড়ানো হয় বা বোঝানো হয় তার অনেককিছু নিয়েই আমার প্রশ্ন আছে। শিরদাঁড়া সোজা রেখে যাঁরা চলতে চান,

সুযোগ পেলে বলবো ছবিটি দেখবেন। ৮০র দশকে পিটার ব্রুকস নতুন আঙ্গিকে ছবি করেছিলেন মহাভারত। এবার উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে সেই ছবি। এই প্রজন্মের সিনেপ্রেমীরা সুযোগ পেলেন ছবিটা দেখার। বেশকিছু স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি ও তথ্যচিত্রও দর্শকের প্রশংসা পেয়েছে। করোনা আবহে শীতের মেজাজে জানুয়ারি মাসে যে চলচ্চিত্র উৎসব কলকাতায়, হয়,এবার তা নির্ধারিত দিনে হবে ঘোষিত হলেও স্থগিত করতে বাধ্য হতে হয়।ফলে বৈশাখি তপ্ত আবহে বলতে গেলে অকালবোধন হল। আবার একটি বছরের অপেক্ষা। গরম আবহে এবার নন্দন প্রাঙ্গণ তেমন জমজমাট না হলেও,ছবি দেখতে হাজির হন ১৮থেকে ৮০ সিনেপ্রেমীরা।

About Post Author

Total Page Visits: 59 - Today Page Visits: 1